অগ্রণী ব্যাংক একাউন্ট খোলার নিয়ম।

অগ্রণী ব্যাংক একাউন্ট খোলার নিয়ম।

জনপ্রিয় বেসরকারি ব্যাংকের মধ্যে অগ্রণী ব্যাংকের রয়েছে বেশ জনপ্রিয়তা। গ্রাহক সেবা, সহজে একাউন্ট খোলা। স্টুডেন্ট একাউন্ট সুবিধা সহ সুদের হার বিভিন্ন দিক থেকে এটি অন্যান্য ব্যাংক হতে আলাদা। তাই আপনি যদি নিরাপদ ব্যাংকিং চান, তাহলে অগ্রণী ব্যাংকে একাউন্ট খুলতে পারেন। কারণ আমরা সবাই চাই আমাদের কষ্টার্জিত অর্থ নিরাপদে থাকুক। অতএব, অগ্রণী ব্যাংকে কি ধরণের একাউন্ট খোলা যায়। কি কি সুবিধা পাবেন। একাউন্ট খুলতে কি কি লাগে তা নিয়ে আজ আলোচনা করব।

অগ্রণী ব্যাংক একাউন্ট এর ধরণঃ

দেশের শীর্ষ স্থানীয় ব্যাংক গুলোর মধ্যে রয়েছে অগ্রণী ব্যাংক। এখানে গ্রহক সেবার স্বার্থ দুই ধরণের একাউন্ট খোলার সুবিধা রয়েছে। যথাঃ  সেভিংস একাউন্ট ও স্টুডেন্ট একাউন্ট । মূলত সেভিংস একাউন্ট সচারাচর সব ব্যাংকেই খোলার সুযোগ থাকে। সব ব্যাংক আবার স্টুডেন্ট একাউন্টের সুবিধা রাখে না। তবে আপনি চাইলে এই দুইটি একাউন্টই অগ্রণী ব্যাংকে খুলতে পারেন। এখন কথা হচ্ছে এই সকল একাউন্ট খুলতে আপনার কি কি কাগজপত্র লাগবে। আসুন জেনে নি অগ্রণী ব্যাংকে একাউন্ট খুলতে কি লাগে।

অগ্রণী ব্যাংক সেভিংস একাউন্ট খোলার নিয়মঃ

সেভিংস একাউন্ট সাধারণত ব্যবসায়ীক লেনদেনে খোলা হয়। অথবা ব্যক্তিগত আর্থিক লেনদেনে। সেভিংস একাউন্ট খোলার খুব বেশি ঝামেলা নেই। আগে জেনে নি কি সুবিধা পাবেন-

১.সেভিংস একাউন্ট একজনে অথবা দুইজনের নামেও খোলা যায়।
২.যে কোন সময় নির্দিষ্ট  পরিমাণ অর্থ জমা এবং তোলা যায়।
৩.সেভিংস একাউন্টে  ৩.৫০% হারে সুদ ধরা হয়।
৪.চেক বই পাবেন।
উক্ত সুবিধা ছাড়াও আরো কিছু বিশেষ সুবিধা থাকলে তা একাউন্ট খোলার সময় জানতে পারবেন।

যা যা লাগবেঃ

আপনি অগ্রণী ব্যাংকে একাউন্ট খুলতে চাইলে দুই ধরণের ডকুমেন্টস লাগবে। কারণ সেভিংস এবং স্টুডেন্ট আলাদা ধরণের একাউন্ট। যদি সেভিংস একাউন্ট খুলতে চান তাহলে যা যা লাগবে-
১.আপনার ন্যাশনাল আইডি কার্ড।
২.দুই কপি পাসপোর্ট সাইজ ছবি।
৩.  আপনার স্থায়ী বাসিন্দা হওয়ার প্রামাণ।
৪.টি এন সার্টিফিকেট।
৫. নমিনির জন্মনিবন্ধন বা আন আইডি।
৬. নমিনির ছবি।

উক্ত ডকুমেন্টস দিয়ে আপনি ফর্ম পূরণ করলে একাউন্ট খুলতে পারবেন।  উক্ত ডকুমেন্টস গুলো একত্রিত করে সঠিক তথ্য দানের মাধ্যমে ফর্ম পূরণ করে জমা দিয়ে একাউন্ট খুলবেন। ফর্মটি ডাউনলোড করে বাসা থেকে পূরণ করে নিয়ে যেতে পারেন। নিচের লিংক হতে ডাউনলোড করুন-

https://www.agranibank.org/index.php/home/downloads

প্রিন্ট করে তা সঠিক তথ্য দিয়ে পূরণ করে ব্যাংকে জমা দিতে হবে।
এবার আপনি যদি স্টুডেন্ট একাউন্ট খুলতে চান তাহলে যে যে ডকুমেন্টস লাগবে তা জেনে নিনা।

অগ্রনী ব্যাংক স্টুডেন্ট একাউন্টঃ


ছাত্র জীবনে আর্থিক লেনদেনের জন্যে একটি একাউন্ট থাকা ভালো। এতে নিজের সঞ্চয় যেমন থাকে তেমন হিসেব করে চলা যায়। দরকারের সময় যখন ইচ্ছে টাকা তোলা যায়। তাই অগ্রণী ব্যাংক তাদের গ্রাহকদের স্টুডেন্ট একাউন্ট  সুবিধা দিচ্ছে। স্টুডেন্ট একাউন্ট খোলার সুবিধা ও কি কি লাগবে তা হলো-

সুবিধা
১. যখন খুশি টাকা রাখা ও উত্তোলন করা যায়।
২.বিশেষ কোন কাগজপত্র লাগে না।
৩. বিদেশি টাকার লেনদেন করা যায়।
৪.সুদের হার তুলনা মূলক সহণীয় (7%) ।
৫. ৫০০ টাকা সর্বনিম্ন হতে যে কোন পরিমাণ টাকা একাউন্ট এ রাখা যায়।
৬. স্টুডেন্টদের স্কলারশিপ এর টাকা অগ্রণী ব্যাংক একাউন্ট এর মাধ্যমে নেয়া যায়।

যা যা লাগবে-

সব ব্যাংকেই কিছু কাগজ পত্র দরকার হয় একাউন্ট খুলতে। তেমনি অগ্রণী ব্যাংকে স্টুডেন্ট একাউন্ট খুলতেও কিছু কাগজপত্র লাগে। এগুলো হলো-

১. জন্মনিবন্ধন বা এন আইডি থাকলে তা।
২. নিজের দু কপি ছবি।
৩.নমিনির কাগজ পত্র।
৪. আপনি যে প্রতিষ্ঠানের ছাত্র তার আইডি কার্ড।

এই সকল ডকুমেন্টস নিয়ে আপনি একাউন্ট খোলার ফর্ম পুরন করে জমা দিলে একাউন্ট খুলতে পারবেন।
এক্ষেত্রে আপনার নিকটস্থ অগ্রনী ব্যাংক এর যে কোন শাখায় যেতে পারেন। কাজ এগিয়ে রাখতে নিচের লিংক হতে ফর্ম ডাউনলোড করে তা প্রিন্ট করে পূরণের মাধ্যমে জমা দিতে পারেন-


https://www.agranibank.org/index.php/home/downloads

উপসংহারঃ


উপরোক্ত আলচনায় আমরা অগ্রনী ব্যাংক একাউন্ট খোলার নিয়মাবলি জানলাম। আমাদের আলোচনায় কোন কিছু বাদ পড়লে তা ক্ষমার দৃষ্টিতে দেখে ব্যাংক হতে যোগাযোগ করে জেনে নিন।

mahmuda tinni

One thought on “অগ্রণী ব্যাংক একাউন্ট খোলার নিয়ম।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *